বাংলাদেশ, শুক্রবার, ৭ মে ২০২১ ২৪শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

দালালচক্রে বন্দি বিআরটিএ


প্রকাশের সময় :২২ এপ্রিল, ২০২১ ৫:৫৮ : পূর্বাহ্ণ

স্টাফ রিপোর্টারঃ

জেলায় জেলায় দালালচক্রের হাতে বন্দি বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষকে (বিআরটিএ)। তাদের দৌরাত্ম্যে নাজেহাল সেবাগ্রহীতা। চালকদের সরকারি লাইসেন্স প্রদান ও নবায়ন, যানবাহনের রেজিস্ট্রেশন ও ট্যাক্স টোকেন প্রদান, ফিটনেস সনদ ইত্যাদি সেবা দিতে গিয়ে দালালের খপ্পরে পড়ে ভোগান্তি পড়েন তারা। অন্যদিকে দালাল টপকিয়ে কর্মকর্তাদের সঙ্গেও নাকি দেখা করা যায় না বলে রয়েছে দীর্ঘদিনের অভিযোগ।

এ প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে দালালচক্রের দৌরাত্ম্য এবং গ্রাহক হয়রানির বিষয়ে বিভিন্ন সময়ে গণমাধ্যমে উঠে এসেছে নানা চিত্র। এরপর কঠোর হুঁশিয়ারির কথা শোনালেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তিনি দালালচক্র ভাঙতে নির্দেশ দিয়েছেন। সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের খুলনা বিআরটিএ’র কর্মকর্তাদের উদ্দেশ করে দালালচক্র ভাঙার নির্দেশ দেন।

গতকাল বুধবার খুলনা সড়ক জোন বিআরটিসি, বিআরটিএর কর্মকর্তাদের সঙ্গে তিনি মতবিনিময় করেন। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের তার সরকারি বাসভবন থেকে সভায় ভার্চুয়ালি যুক্ত হন। সেবা গ্রহীতাদের কাছে বিআরটিএ-কে আরও গ্রহণযোগ্য করার নির্দেশ দিয়ে সড়ক পরিবহনমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘খুলনা বিআরটিএ-কে দালাল চক্র ভাঙতে হবে। না হলে এর দায় কিন্তু আপনাদের নিতে হবে। বাইরের দালালরা ভেতরের সহযোগিতা ছাড়া কী করে প্রভাব বিস্তারের সুযোগ নেয়।’ এর আগে ওবায়দুল কাদের রাজশাহী, ঢাকাসহ কয়েকটি জোনের সঙ্গে মতবিনিময়কালে বিআরটিএ’র দালালচক্র ভেঙে দেওয়ার কথা বলেন।

বিআরটিএ’র চালকদের সরকারি লাইসেন্স প্রদান ও নবায়ন, যানবাহনের রেজিস্ট্রেশন ও ট্যাক্স টোকেন প্রদান, ফিটনেস সনদ ইত্যাদি সেবা দিয়ে থাকে। দীর্ঘদিন থেকে এ প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে দালালচক্রের দৌরাত্ম্য এবং গ্রাহক হয়রানির অভিযোগ রয়েছে।

সড়ক পরিবহন কর্মকর্তা-কর্মচারীদের উদ্দেশ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘যশোর-খুলনা মহাসড়কের নোয়াপাড়া থেকে যশোরের দিকে যেতে প্রায় ১০ কিলোমিটার সড়ক খুবই ক্ষতিগ্রস্ত। এরমধ্যে তিন কিলোমিটার যান চলাচলের উপযোগী নয়। আপনারা যা-ই বলার চেষ্টা করেন না কেন, আমি কিন্তু প্রকৃত চিত্রটা পাই। আমি শুনতে চাই, কাজ কতটুকু এগিয়েছে। কতটুকু কাজের অগ্রগতি। কাজের অগ্রগতির পথে কোথায় কোথায় বাধা, তা জানতে চাই। আশা করবো, যশোর-খুলনা সড়ক নিয়ে আমাকে বারবার কথা শুনতে হবে না।’

সরকার ভালো কাজের পুরস্কার দেবেন উল্লেখ করে মন্ত্রী কাদের বলেন, ‘যারা ভালো কাজ করবেন তারা পুরস্কৃত হবেন। আর যারা কাজে গাফিলতি করবেন তাদের তিরস্কারও প্রাপ্য। কেবল কাজ দিলেই হবে না, ঠিকাদার যাতে যথাসময়ে কাজ শুরু করে, সময়মতো শেষ করে— এ বিষয়টির ওপর গুরুত্ব দিতে হবে। যেসব ঠিকাদার গাফিলতি করে কাজ সময়মতো শুরু ও শেষ করতে চায় না, প্রয়োজনে কার্যাদেশ বাতিল করতে হবে। দরকার হলে কালো তালিকাভুক্ত করার সিদ্ধান্ত নিতে হবে।’

ট্যাগ :