বাংলাদেশ, বৃহস্পতিবার, ২২ এপ্রিল ২০২১ ৯ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

ছাদেও করা যাবে না থার্টিফার্স্ট নাইটের অনুষ্ঠান


প্রকাশের সময় :৩০ ডিসেম্বর, ২০২০ ১২:৩৬ : পূর্বাহ্ণ

এম.এইচ মুরাদঃ

করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে ‘থার্টিফার্স্ট নাইট’ উদযাপন নিয়ে কড়াকড়ি আরোপ করতে যাচ্ছে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ (সিএমপি)। ৩১ ডিসেম্বর রাতে সার্বিক নিরাপত্তা ও আইন-শৃঙ্খলার স্বার্থে রাস্তার মোড়, ফ্লাইওভার, রাস্তায়, ভবনের ছাদে এবং প্রকাশ্যে কোনো ধরনের জমায়েত বা অনুষ্ঠান করা যাবে না। এমনকি পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকতসহ উন্মুক্ত বিনোদন কেন্দ্রগুলোতেও জমায়েত করা যাবে না। তবে সিএমপির বিশেষ অনুমতি নিয়ে সীমিত আকারে ইনডোর অনুষ্ঠান করা যাবে। 

মঙ্গলবার (২৯ ডিসেম্বর) রাতে সিএমপির উপ কমিশনার (বিশেষ শাখা) আব্দুল ওয়ারিশ সিভয়েসকে এসব তথ্য জানান। তবে এ বিষয়ে আগামীকাল বুধবার সকালে এক সংবাদ সম্মেলনে বিস্তারিত জানানো হবে বলে জানান তিনি। 

সিএমপি সূত্র জানায়, করোনাভাইরাসের কারণে বিভিন্ন দেশে অনুষ্ঠান সীমিত আকারে পালন করা হচ্ছে। ইংরেজি নববর্ষ উপলক্ষে ৩১ ডিসেম্বর রাতে নগরীর বিভিন্ন এলাকায় স্বাস্থ্যবিধি মেনে সীমিত আকারে নির্ধারিত অনুষ্ঠানসমূহ পালিত হবে। তবে সরকারের নির্দেশনা অনুসারে উন্মুক্ত স্থানে কোনো অনুষ্ঠানের আয়োজন করা যাবে না। ৩১ ডিসেম্বর রাতে পটকাবাজি, আতশবাজি, বেপরোয়া গাড়ি ও মোটরসাইকেল চালনাসহ যে কোনো ধরনের অশোভন আচরণ এবং বেআইনি কার্যকলাপ থেকে বিরত থাকতে হবে।

সার্বিক নিরাপত্তা ও আইন-শৃঙ্খলার স্বার্থে রাস্তার মোড়, ফ্লাইওভার, রাস্তায়, ভবনের ছাদে এবং প্রকাশ্যে স্থানে কোনো ধরনের জমায়েত, সমাবেশ বা উৎসব করা যাবে না। উন্মুক্ত স্থানে নববর্ষ উদযাপন উপলক্ষে কোনো ধরনের অনুষ্ঠান বা সমবেত হওয়া যাবে না বা নাচ, গান ও কোনো সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান করা যাবে না। কোথাও কোনো ধরণের আতশবাজি-পটকা ফোটানো যাবে না। পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকতসহ উন্মুক্ত বিনোদন কেন্দ্রগুলোতেও রাত ৮টার পর বহিরাগতরা প্রবেশ করতে পারবেন না। ৩১ ডিসেম্বর সন্ধ্যা ৬টার পর কোনো বার খোলা রাখা যাবে না। রাত ১০টার পর সব ফাস্টফুডের দোকান বন্ধ থাকবে। তবে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে সীমিত আকারে আবাসিক হোটেলগুলোতে নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় অনুষ্ঠান করা যাবে। তবে কোনোভাবেই ডিজে পার্টি করতে দেওয়া হবে না।

৩১ ডিসেম্বর সন্ধ্যা ৬টা থেকে ১ জানুয়ারি ভোর ৬টা পর্যন্ত বিভিন্ন আবাসিক হোটেল, রেস্তোরাঁ, জনসমাবেশ ও উৎসবস্থলে সব ধরনের লাইসেন্সকৃত আগ্নেয়াস্ত্র বহন না করতে নিরুৎসাহিত করা হয়েছে। একই সাথে উপরোক্ত নির্দেশনা পালনে ব্যর্থ সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানানো হয় সিএমপির পক্ষ থেকে।

ট্যাগ :