বাংলাদেশ, শনিবার, ২৩ জানুয়ারী ২০২১ ৯ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম

সৌদি টিকিটের বিড়ম্বনা কমেনি! অভিযোগ যাত্রীদের


প্রকাশের সময় :৩ অক্টোবর, ২০২০ ৫:২২ : পূর্বাহ্ণ

স্টাফ রিপোর্টারঃ

গত মার্চে হাতে টিকিট পেয়েও মহামারীর কারণে আকস্মিকভাবে বন্ধ হয়ে যাওয়া ফ্লাইটের যাত্রীদের গত ৩০ সেপ্টেম্বর থেকে বিমানের বিশেষ ফ্লাইটে সৌদি আরব নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। এক্ষেত্রে কয়েক দিন আগে টোকেন দেওয়া ছাড়াও কিছু পদ্ধতি অনুসরণ করে আটকেপড়া সৌদি গমনেচ্ছুদের কাছে ফ্লাইটের টিকিট হস্তান্তরে কিছুটা শৃঙ্খলা ফিরিয়ে এনেছে এয়ারলাইন্সগুলো। তবে সঠিক তথ্য না পাওয়ায় দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে ঢাকায় টিকিটের জন্য এসে ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে অনেককে।

গতকাল শুক্রবার ছুটির দিনেও মতিঝিলে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের বুকিং কাউন্টার এবং কারওয়ানবাজারে সৌদি এয়ারলাইন্সের বুকিং কাউন্টারের বাইরে কয়েকশ’ যাত্রীর ভিড় দেখা গেছে। তবে গত সপ্তাহের মতো এদিন কোনো মিছিল-হট্টগোল হয়নি।

উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা নিয়ে গতকালও মতিঝিল বকচত্বরে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের কার্যালয়ে টিকিটের জন্য ভিড় করেন কয়েকশ’ সৌদি গমনেচ্ছু। দুপুরে মতিঝিল বকচত্বরে বলাকা ভবনের দুটি প্রবেশপথের কলাপসিবল গেট বন্ধ, সেখানে পাহারায় রয়েছেন একদল পুলিশ। আগেই টোকেন সংগ্রহ করা যাত্রীদের পালা করে কাউন্টারে ডেকে নিয়ে যাচাই-বাছাই শেষে দেওয়া হচ্ছে টিকিট।

এ বিষয়ে কয়েকজন সৌদি গমনেচ্ছু জানান, কয়েক দফায় ছুটির মেয়াদ বাড়ানোর পর গত ৩০ সেপ্টেম্বর তাদের ভিসার মেয়াদ শেষ হয়। ওই দেশের কফিলের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি কিছু টাকার বিনিময়ে ভিসার মেয়াদ আরও এক মাস বাড়িয়ে যত দ্রুত সম্ভব চলে আসতে বলেন।

কিন্তু এখন বিমানের অফিসাররা বলছেন, যাদের ভিসার মেয়াদ খুবই কম তাদেরকে তারা অগ্রাধিকার দিচ্ছেন। যারা টোকেন সংগ্রহ করেছিলেন তারাও ধীরে ধীরে টিকিট পাচ্ছেন। ফলে তাদের মতো অনেকেই উদ্বেগে রয়েছেন।

এদিকে টিকিটের জন্য আগে টোকেন সংগ্রহ করতে হবে, সেই নিয়ম না জেনে সরাসরি টিকিটের জন্য দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে এসে ভোগান্তিতে পড়েছেন অনেকে। গত ২৬ সেপ্টেম্বর থেকেই টিকিটের আশায় রয়েছেন অসংখ্য প্রবাসী।

এদিকে কারওয়ানবাজারে হোটেল সোনারগাঁও এলাকায় সৌদি এয়ারলাইন্সের কাউন্টারে দেখা যায়, সেখানে হোটেলের সীমানা দেওয়ালের ভেতরে টোকেনধারী প্রায় দুইশ’ যাত্রী অপেক্ষা করছেন।

তাদের কয়েকজন ভিসার অনুবাদ কপি দেখিয়ে জানান, গত ২৬ সেপ্টেম্বর থেকে তারা সৌদি এয়ারলাইন্সের বাইরে অপেক্ষা করছেন। তারা টোকেনও সংগ্রহ করতে পারেননি। তবে কয়েকজন বলেন, গত মার্চে আমাদের টিকিট কাটা ছিল। কিন্তু মহামারীর কারণে ফ্লাইট বাতিল হয়ে যায়। ৪-৫ দিন আগে টোকেন সংগ্রহ করেছিলাম। তখন বলেছিল আগামী ১২ অক্টোবর এই টোকেন নিয়ে আসতে। গতকাল তুলনামূলক ভিড় কম থাকায় আগামী ৮ অক্টোবরের টিকিট বুঝিয়ে দেয় কর্তৃপক্ষ।

ফটকের বাইরে টাঙানো এক নোটিসে সৌদি এয়ারলাইন্স জানিয়েছে, আগামী ৪ অক্টোবর সকাল ৮টা থেকে ১১টা পর্যন্ত সময়ে আগের মতো করেই টোকেন বিতরণ করা হবে। আপাতত দেওয়া হচ্ছে আগের টোকেনের যাত্রীদের টিকিট।

করোনাভাইরাসের কারণে প্রায় ছয় মাস বন্ধ থাকার পর ঢাকা থেকে বিমান বাংলাদেশ ও সৌদি এয়ারলাইন্স সপ্তাহে ১০টি করে মোট ২০টি ফ্লাইট পরিচালনা করছে সৌদি আরবে।

ট্যাগ :