বাংলাদেশ, শনিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ ৪ঠা আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

চট্টগ্রামে করোনার সুযোগ ব্যাবহার করে ভাড়াটিয়া এক বছরের অপরিশোধিত বাসা ভাড়া না দিতে বাড়ির মালিকের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র


প্রকাশের সময় :22 April, 2020 12:20 : PM

এম.এইচ মুরাদঃ

চট্টগ্রাম নগরীর ২৩ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মো. জাবেদের মালিকানাধীন চৌমুহনী জাবেদ টাওয়ার।
“করোনাভাইরাসের এই মহামারির সময় ফ্ল্যাট ভাড়া দিতে বিলম্ব হওয়ায় ভাড়াটিয়াদের পানির সংযোগ কেটে দিয়েছেন চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের কাউন্সিলর” এই রকম একটি মিথ্যা সংবাদ প্রচারের মাধ্যমে এবং আগের অপরিশোধিত ভাড়া না দেয়ার জন্য বিভিন্ন মিথ্যা অভিযোগ এনে একটি জনপ্রিয় টিভির অনলাইনে সংবাদ প্রচার করেছেন অসাধু জনৈক ভাড়াটিয়া।

সংবাদে উল্লেখ করা হয়, গতকাল মঙ্গলবার রাতে নগরীর ২৩ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মো. জাবেদের মালিকানাধীন চৌমুহনী জাবেদ টাওয়ারে পানির সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেওয়া হয়। যা সম্পূর্ণ মিথ্যা ও বানোয়াট সংবাদ বলে জানিয়েছেন ফ্লাটে বসবাসরত ভাড়াটিয়া পরিবারের সদস্যরা।

ফ্লাটে বসবাসরত ভাড়াটিয়া সাকিবুর রহমানের কাছে ঘটনা সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমাদের জমিদার কাউন্সিলর জাবেদ সাহেব এই বিল্ডিংয়ে থাকে না। তাই তিনি তেমন একটা এখানে আসেন না। ভাড়া এবং অন্যান্য বিষয়গুলো ম্যানেজার দেখে থাকে। আমাদের অনেক সময় ভাড়া দিতে দেরি হলেও কখনও আমাদের সাথে খারাপ ব্যাবহার করেনি। ওয়াসা কতৃক পানি সংযোগের সমস্যা না থাকলে এখানে কোন সময় পানির লাইন বন্ধ হয় নাই। তাই এই রকম অভিযোগ শোনার পর আমরাও বিশ্বাস করতে পারছি না। আমাদের মনে হয় ওনার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের অংশ হিসাবে এটি ব্যাবহার করতে চাচ্ছে।

জাবেদ টাওয়ারের ব্যবস্থাপক মো. ইউসুফ জানান, গত কয়েক মাস থেকে ফ্ল্যাটের বাসিন্দাদের মধ্যে কয়েকজন ভাড়া পরিশোধ না করায় আমি গতকাল বেশ কয়েক মাস আগের ভাড়া চাইছিলাম। কিন্তু তারা বর্তমান পরিস্থিতির কথা বলে ভাড়া দিতে চাননি। আর এটি নিয়ে আমি কোন প্রকার বাড়াবাড়িও করিনি। হঠাৎ আজকে সকালে এক সাংবাদিক এসে ভাড়ার বিষয় সম্পর্কে জানতে চাইলে আমি ওনাকে পুরো বিষয়টি জানায়। পরে দেখলাম আমি যা বলছি তার পুরো উল্টো এবং সম্পূর্ণ মিথ্যা একটি সংবাদ প্রচার করা হলো। ঔ সংবাদে আমার যে বক্তব্য দেওয়া হয়েছে ওটা আমার বক্তব্য নয়। এ থেকে বুঝা যায় এটি একটি সম্পূর্ণ বানোয়াট ও ভিত্তিহীন সংবাদ।

এ বিষয়ে বাড়ির মালিক কাউন্সিলর জাবেদের কাছে জানতে চাইলে তিনি একাত্তর বাংলা নিউজকে বলেন, আমার কয়েকটি বাড়ি রয়েছে চট্টগ্রাম শহরে। এই পর্যন্ত কোন ভাড়াটিয়া বলতে পারবে না আমি কোনদিন ওনাদের কাছ থেকে সরাসরি ভাড়া নিছি বা চাইছি। আমার ম্যানেজার আছে ওনি দেখভাল করে এইসব বিষয়গুলো। এমনকি সময়ের অভাবে গত তিন মাস হবে আমি ঐ বিল্ডিংগুলোতে যায় নাই।আমার বিল্ডিং এ এমনও ভাড়াটিয়া আছে যারা গত এক বছরের ভাড়া বকেয়া রেখেছে। আমার ম্যানেজারকে বলা আছে যেন ভাড়াটিয়াদের সাথে খারাপ ব্যাবহার না করে। তবুও কে বা কারা আমার বিরুদ্ধে এই রকম মানহানিকর নিউজ করাল জানি না। একটি জনপ্রিয় টিভির অনলাইনে কিভাবে যাচাই বাচাই ছাড়া নিউজ করতে পারে তাও আমার বোধগম্য নয়। তবু্ও সকলের উদ্দেশ্যে একটি কথাই বলব আমি আপনাদের সন্তান, ভাই। আপনারা আমাকে জেনেশুনে আপনাদের মূল্যবান ভোটের মাধ্যমেই আপনাদের সেবা করার সুযোগ দিয়েছেন। সেই হিসাবে যতটুকু পেরেছি আপনাদের পাশে থাকার চেষ্টা করেছি। কখনো আপনাদের অপছন্দ হয় আমার জানামতে এই রকম কাজ আমি করি নাই। সুতরাং দেশের এই সংকটময় মুহূর্তে ভাড়াটিয়াদের সাথে এই রকম কাজ আমি কেন, কেউ করতে পারে বলে আমি বিশ্বাস করি না। আমার করা ভালো কাজগুলোকে আড়াল করার জন্য এবং বর্তমান এই করোনা সংকটময় সময়ে আমি অসহায় মানুষের পাশে থেকে ত্রান সামগ্রী বিতরণ এবং বিভিন্ন সাহায্য সহযোগিতা করতেছি তা বাধাগ্রস্ত করতেই মূলত আমার বিরোধীরা এই অপপ্রচার ও ষড়যন্ত্রমূলক কর্মকান্ড করছে বলে আমি মনে করছি। আমি এই সমস্ত অপপ্রচারের বিরুদ্ধে তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি এবং আপনাদের কাছে আমার বিনীত অনুরোধ এইসব ভিত্তিহীন সংবাদে আপনারা বিচলিত না হয়ে আমার পাশে থেকে আমাকে সাহস যোগাবেন এই আশাই করছি।

ট্যাগ :