বাংলাদেশ, বুধবার, ৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ২৫শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

চট্টগ্রামের পলোগ্রাউন্ড ময়দানে প্রধানমন্ত্রীর ঐতিহাসিক জনসভা আজ


প্রকাশের সময় :৪ ডিসেম্বর, ২০২২ ৪:৫৪ : পূর্বাহ্ণ

এম.এইচ মুরাদঃ

আজ চট্টগ্রামে আসবেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। দীর্ঘ ১১ বছর পর কোনো জনসভায় যোগ দিতে তিনি আসছেন। এ উপলক্ষে চট্টগ্রামজুড়ে বয়ে যাচ্ছে আনন্দের বন্যা।

লাখো মানুষ অপেক্ষা করছে এক পলক দেখার আশায়। পুরো নগরজুড়ে করা হয়েছে সাজসজ্জা, রাতে করা হচ্ছে লাইটিং। উৎসবের আমেজ শহরের প্রতিটি প্রান্তে।

অন্যদিকে গতকাল বিকাল থেকে দক্ষিণ ও উত্তর চট্টগ্রাম থেকে মানুষ নগরমুখী হচ্ছে। নগর, উত্তর ও দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে নগরীর পলোগ্রাউন্ডে এ জনসভার আয়োজন করা হয়েছে।

জানা গেছে, প্রধানমন্ত্রী আজ সকালে ভাটিয়ারিতে বাংলাদেশ মিলিটারি একাডেমিতে সামরিক বাহিনীর একটি অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন। সেখান থেকে দুপুরে হেলিকপ্টারে চট্টগ্রাম স্টেডিয়ামে আসবেন। স্টেডিয়াম থেকে গাড়িতে করে প্রধানমন্ত্রী পলোগ্রাউন্ডে জনসভায় যোগ দেবেন।

তিনি চট্টগ্রামে সর্বশেষ জনসভায় এসেছিলেন ২০১২ সালের ২৮ মার্চ। সেদিন তিনি পলোগ্রাউন্ডে ১৪ দলের মহাসমাবেশে যোগ দিয়েছিলেন। ১০ বছর ৯ মাস পর একই মাঠে আবার ভাষণ দেবেন তিনি।

এদিকে প্রধানমন্ত্রীর আগমন উপলক্ষে উৎসবের আমেজ তৈরি হয়েছে নেতাকর্মীদের মধ্যে।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য, সাবেক মন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধা ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন এমপি, তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ, ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ, শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোছলেম উদ্দিন আহমেদ এমপি, সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমান, মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন, উত্তর জেলা সভাপতি ও সাবেক জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এমএ সালাম, সাধারণ সম্পাদক শেখ আতাউর রহমান, সিটি করপোরেশনের মেয়র এম রেজাউল করিম চৌধুরীসহ নেতৃবৃন্দ ইতোমধ্যে জনসভার মাঠ পরিদর্শন করেছেন এবং প্রয়োজনীয় দিকনির্দেশনা দিয়েছেন।

দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোছলেম উদ্দিন আহমদ বলেন, ‘চট্টগ্রামবাসীর জন্য প্রধানমন্ত্রী কাজ করেছেন। তাই এ জনসভায় আওয়ামী লীগের কর্মীরা ছাড়াও সাধারণ জনগণও উপস্থিত হবেন। এ জনসভা মানুষের উপস্থিতিতে অতীতের সকল রেকর্ডকে ভঙ্গ করবে। শনিবার বিকাল থেকে মানুষ নগরমুখী হওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছে। এবারের পলোগ্রাউন্ড জনসভা একটি ঐতিহাসিক জনসভায় রূপ নেবে।’

জনসভার প্রস্তুতি প্রসঙ্গে জানতে চাইলে নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেন, ‘দীর্ঘ ১১ বছর পর প্রধানমন্ত্রী চট্টগ্রামের মানুষের কাছে আসছে। পলোগ্রাউন্ডে মহাসমাবেশ হবে, এ দিনটি আমাদের জন্য অত্যন্ত গর্বের ও পরম আনন্দের। এখানে ভাষণ দেবেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর কন্যা প্রধানমন্ত্রী। প্রধানমন্ত্রীকে ভালোবেসে চট্টগ্রামের মানুষ আনন্দ উৎসব পালন করছে, নিজেদের ব্যক্তিগত কাজ বাদ দিয়ে সমাবেশে ছুটে আসছে, এর চেয়ে বড় আনন্দের দিন আর কি হতে পারে।’

উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও চট্টগ্রাম জেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান এম এ সালাম বলেন, ‘চার তারিখের জনসভাকে ঘিরে সার্বিক প্রস্তুতি শেষ। চট্টগ্রামের মানুষ প্রধানমন্ত্রীকে একনজর দেখতে, কাছাকাছি স্থান থেকে একটু কথা শুনতে দীর্ঘদিন ধরে অপেক্ষা করছেন। ১৫ দিন ধরে প্রধানমন্ত্রীকে বরণ করে নিতে চট্টগ্রামবাসী নানা আয়োজন, অনুষ্ঠান করেছে। আনন্দ উৎসব ও র‌্যালি বের করছে। আশা করি, এবার জনসভায় লোক জমায়েতে অতীতের সকল রেকর্ড ছাড়িয়ে যাবে। জনসভার বক্তব্য ও প্রধানমন্ত্রীকে দেখতে মাঠের বাইরেও এলইডি টিভি বসানো হয়েছে।’

ট্যাগ :