বাংলাদেশ, শনিবার, ১৩ আগস্ট ২০২২ ২৯শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

হজযাত্রীদের জন্য ‘নতুন দিগন্ত’ উন্মোচন


প্রকাশের সময় :৩ জুলাই, ২০২২ ৯:১৯ : পূর্বাহ্ণ

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ

বাংলাদেশসহ বিশ্বের শীর্ষ ৫ মুসমিল রাষ্ট্র পাকিস্তান, মালিয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া ও মরোক্কোর জন্য মক্কা রুট কর্মসূচি পরিচালনা করছে সৌদি আরব।

এই কর্মসূচির অংশ হিসেবে ঢাকায় হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে আসা হাজারো বাংলাদেশি হজযাত্রীর সুবিধার্থে কাজ করে যাচ্ছেন সৌদি কর্তৃপক্ষের কর্মকর্তারা। খবর আরব নিউজের।

শাহজালাল বিমানবন্দরে স্থাপিত এই মিট অ্যান্ড গ্রীট সার্ভিসের উদ্দেশ্য হলো নথিপত্রের প্রক্রিয়াগুলোকে সুবিন্যস্ত করে মক্কার উদ্দেশে যাত্রা করা হজযাত্রীদের সাহায্য ও পরামর্শ দেওয়া।

হজযাত্রীদের সুবিধায় ২০১৯ সালে চালু হওয়া এই মক্কা রুট কর্মসূচির আওতায় তাদের ভিসা, কাস্টমস ও স্বাস্থ্য সম্পর্কিত নানা সুযোগ-সুবিধা সরবরাহ করা হচ্ছে। আগে যা দীর্ঘ প্রক্রিয়া ছিল, বর্তমানে এই কর্মসূচির আওতায় অনেক সহজেই করতে পারছেন হজযাত্রীরা।

ঢাকার হজ অফিস পরিচালক সাইফুল ইসলাম বলেন, ‌‘এটি একটি নতুন জিনিস, যা নতুন দিগন্ত উন্মোচন করেছে এবং সৌদি কর্তৃপক্ষের প্রতি আমরা আন্তরিক কৃতজ্ঞ। এ বছর ৬০ হাজার বাংলাদেশি হজ করতে যাচ্ছেন।

আরব নিউজের খবরে বলা হয়েছে, এই সংখ্যা (৬০ হাজার) ২০১৯ সালের অর্ধেক। করোনা মহামারির কারণে গত ২ বছর বাংলাদেশ থেকে মানুষ হজে অংশ নিতে পারেননি। এ বছর করোনার সংক্রমণ কম থাকায় বিশ্বজুড়ে ১০ লাখ মুসল্লি সৌদি আরবে হজ করতে যাচ্ছেন। বাংলাদেশ থেকে যারা হজে যাচ্ছেন তাদের দেখভাল ও সহায়তা করছেন ৫০ সদস্যের সৌদি কর্মকর্তার একটি দল।

এবার বাংলাদেশ থেকে হজে যাচ্ছেন মোহাম্মদ মোজাম্মেল হক। কয়েক যুগ আগে তার বাবাকে হজে যেতে দেখেছেন, সেই থেকে স্বপ্ন। তিনি বলেন, আমার জীবনের অন্যতম বড় স্বপন ছিল হজ করা। এই যাত্রায় যেই ব্যবস্থাপনা করা হয়েছে তাতে আমরা খুশি। এখন পর্যন্ত যাত্রাপথে কোনো বাধার সম্মুখীন হইনি।

আরেক হজযাত্রী ইয়াহিয়া হেলাল বলেন, এবার হজযাত্রীদের নিয়ে যেই ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে তাতে সবাই সন্তুষ্ট।

রোকেয়া খাতুন লতা নামের এক গৃহকর্ত্রীও সন্তুষ্টি প্রকাশ করে বলেন, ‘মক্কা রুটের উদ্যোগে, ইমিগ্রেশন প্রক্রিয়া সম্পূর্ণ করতে আমার ৩০ মিনিটেরও কম সময় লেগেছে। যাত্রার শুরু থেকেই আমি খুব খুশি বোধ করছি।’

ট্যাগ :